রবিবার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ-
রাজৈর নিউজের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম নিত্যনতুন সকল সংবাদ পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
করোনা প্রতিরোধেঃ রাজৈরে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে পুলিশের অভিযান দলমত নির্বিশেষে সকলের কাছে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিন,প্রধানমন্ত্রীর ৩১ টি নির্দেশনা মেনে চলুন মাদারীপুরে ডাকাতির ঘটনায় পুলিশের চেষ্টায় তিন ডাকাত আটক রাজৈরে ২ হাজার দুঃস্থ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে শিবচরে ৬ টি বসত ঘরসহ ১৩ টি ঘর পুড়ে ছাই, ১৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি করোনা সংক্রমন রোধে শিবচর বাংলাদেশে দৃষ্টান্ত, চীফ হুইপের খাবার সহায়তা মানুষকে ঘরে রাখছে -বেদে সম্প্রদায়ের মাঝে খাবার বিতরনকালে পুলিশ সুপার করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাজৈর পৌরসভায় ব্লিচিং মেশানো পানি ছিটালো রাজবাড়ী কালুখালী থানা পুলিশ কর্তৃক এলাকার দুস্থ ভ্যান চালক, হিজলা(তৃতীয় লিঙ্গ) ও বেদে সম্প্রদায়ের মাঝে খাদ্য এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার সামগ্রী বিতরন চালসহ গ্রেপ্তারকৃত মাসুম শিবচরের যুবলীগের কোন ইউনিটের কোন পদে নেই – সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ শিবচরে মাহেন্দ্র মোটরসাইকেল সংঘর্ষে যুবক নিহত
করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিঃ শিবচরে একটি স্কুলের ১৯ শিক্ষার্থীসহ হোম কোয়ারেন্টাইনে ৭০ জন, আইসোলেশনে ইতালী প্রবাসীর শাশুড়ি

করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিঃ শিবচরে একটি স্কুলের ১৯ শিক্ষার্থীসহ হোম কোয়ারেন্টাইনে ৭০ জন, আইসোলেশনে ইতালী প্রবাসীর শাশুড়ি

Shibchar Hospital area

add 720x200

প্রদ্যুৎ কুমার সরকারঃ আইসোলেশনে থাকা ইটালী প্রবাসীর সন্তানের সাথে লেখাপড়া করা একই শ্রেনীকক্ষের ১৯ শিক্ষার্থীকে মাদারীপুরের শিবচরে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে । স্কুলটির প্রধান শিক্ষকের সাথে আইইডিসিআর এর কর্মকর্তারা ও চিকিৎসকরা এদিন হাসপাতালে আলোচনা করেছে বলে জানা গেছে। ওই ১৯ শিক্ষার্থীসহ শিবচরেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৭০ জন। জেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ১২৯ জন। এছাড়া গেলো কয়েকদিনে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর জেলায় ১৩৮ জনকে রিলিজ করা হয়েছে। ঢাকায় আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে ইতালী প্রবাসীর শাশুড়িকে। এরআগে ওই ইটালী প্রবাসী,স্ত্রী ও সন্তানকে ঢাকার আইসোলেশনে পাঠানো হয়।

প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগসহ স্থানীয় একাধিক সুত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে ইটালী থেকে শিবচর পৌর এলাকার এক প্রবাসী দেশে আসে। দেশে আসার পর জ¦র কাশি অনুভব করলে সে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যায়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে ঢাকায় আইইডিসিআর এ প্রেরন করা হয় তাকে। আইইডিসিআর এর পক্ষ থেকে গত রবিবার সকালে শিবচরে এসে এ্যাম্বুলেন্সে করে তার স্ত্রী ও সন্তানকে ঢাকায় আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হয়। সোমবার ওই প্রবাসীর শাশুড়ীকেও ঢাকায় আইসোলেশনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শে ওই ইটালী প্রবাসীর শিশু কন্যার সহপাঠী একই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৯ জন শিক্ষার্থীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। স্কুলটির প্রধান শিক্ষকের সাথে আইইডিসিআর এর কর্মকর্তারা ও চিকিৎসকরা এদিন হাসপাতালে আলোচনা করেছে বলে জানা গেছে। ওই ১৯ শিক্ষার্থীসহ উপজেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৭০ জন। জেলায় মোট হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে ১২৯ জন। এছাড়া গেলো কয়েকদিনে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে সারা জেলায় হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর ১৩৮ জনকে রিলিজ করা হয়েছে।

মাদারীপুর স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য মতে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাদারীপর সদর হাসপাতালের নতুন ভবনে একশ শয্যা প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়াও সদর হাসপাতালের পুরাতন ভবনের দুটি কেবিনের ৪টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। চারটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ২টি করে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। করোনাভাইরাস মোকাবেলার জন্যে সচেতনামূলক লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া যে কোন সভা সেমিনার না করার নিদের্শ দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ইতালী প্রবাসীর সন্তানের সাথে লেখাপড়া করা ১৯ শিক্ষার্থীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার পরামর্শ দিয়েছে। তারা আমাকে হাসপাতালে ডেকে পাঠিয়েছিল।

হাসপাতালে গেলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ শংশাঙ্ক কুমার ঘোস বলেন, আইইডিসিআর কর্মকর্তারা মিডিয়ার সাথে কথা বলবেন না।

শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান বলেন, যেহেতু ইতালী প্রবাসী শিবচরে বেশি। তাই ঝূকি বেশি। হোম কোয়ারেন্টাইন যারা মানবেন না তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ১৯ শিক্ষার্থীসহ ৭০জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে আছে এ উপজেলায়।

মাদারীপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, মাদারীপুর জেলায় ১২৯ জনকে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ দেয়া হয়। এরমধ্যে শিবচরের ১৯ শিক্ষার্থী রয়েছে। এদের মধ্যে যারা হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে নির্দেশ অমান্য করবে, তাদের ব্যাপারে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রতিটি উপজেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে যারা নির্দেশ অমান্য করবে তাদের জেল-জরিমানাও করবে।

Comments

comments

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

add 720x200

Leave a Reply




add 300x600

উন্নয়ন সহযোগীতায়ঃ- সেভেন ইনফো টেক