বুধবার, ০৫ অগাস্ট ২০২০, ০১:৩৩ অপরাহ্ন

নোটিশঃ-
রাজৈর নিউজের ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম নিত্যনতুন সকল সংবাদ পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন
সর্বশেষ সংবাদঃ-
টেকেরহাট কোরবানির পশুরহাটে পৌর মেয়রের মাস্ক বিতরণ দেশের ত্রাণ কার্যক্রম আগের চেয়ে অনেক সহজলভ্য হয়েছে-চীফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী টেকেরহাটে কোরবানীর পশুর হাট জমে উঠলেও ক্রেতা সংকট, দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ী ও খামারীরা রাজৈরে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরীকে কুপিয়ে আহতের ঘটনায় সেই বখাটে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার রাজৈরে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীকে কুপিয়ে জখম করেছে বখাটে রাজৈরে খালে ভেসাল জাল পাতা নিয়ে বিরোধ,বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা,আহত ১ রাজৈরে টেকেরহাট বন্দরে নিষিদ্ধ পিরানহা বিক্রির দায়ে মাছ ব্যাবসায়ীকে জরিমানা খালেদা জিয়া যদি জেলে থাকতো তাহলে তিনি বলতেন আমিতো জেলে কি করে করোনা, বন্যা ও নদী ভাঙ্গনে মানুষের পাশে আমি যাবো- চীফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী রাজৈরে রাস্তা,বসতবাড়িসহ ফসলি জমি কুমার নদে বিলীন ও বন্যায় শতশত ঘরবাড়ি প্লাবিত,স্কুলে আশ্রয় নিয়েছে অর্ধশতাধিক পরিবার দানশীল এবং পরোপকারী ব্যক্তি হিসেবে চিনতো লোকে!কোটি টাকা নিয়ে উধাও
করোনা ও বন্যার কারনে মাদারীপুরের কোরবানীর পশুর হাট এখনো জমে উঠেনি / দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ী ও খামারীরা

করোনা ও বন্যার কারনে মাদারীপুরের কোরবানীর পশুর হাট এখনো জমে উঠেনি / দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ী ও খামারীরা

20200716_164238

add 720x200

নিত্যানন্দ হালদারঃ কোরবানীর আর মাত্র ৮দিন বাকী।এরই মধ্যে মাদারীপুরের খামারীরা গরু মোটা তাজা করণের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন।অন্যান্য বছর ঈদের ২/৩ সপ্তাহ আগ থেকে পশুর হাট মেলতে শুরু করলেও এ বছর হাটে ক্রেতা ও বিক্রেতার উপস্থিতি একেবারেই নগণ্য।ব্যবসায়ী ও গৃহস্থরা যাও দুএকটি গরু-ছাগল হাটে নিয়ে আসছে তাও বিক্রি করতে না পেরে বাড়ী ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।খামারেও উল্লেখযোগ্য ক্রেতা ও ব্যবসায়ী না আসায় দুশ্চিন্তায় দিনাতিপাত করছে খামারীরা।এদিকে বন্যার পানিতে চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের বিভিন্ন জায়গা প্লাবিত হয়ে পড়ায় পশু নিয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে কৃষক ও খামারীদের।আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই হাটে পশু আশানুরূপ বেঁচাকেনা শুরু হবে বলে আশ্বস্থ করলেন প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস ও আকস্মিক বন্যার কারণে মাদারীপুরের পশুর হাটগুলোতে ক্রেতা বিক্রেতার উপস্থিতি খুবই কম।স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই ক্রেতা বিক্রেতাদের উপস্থিতি দেখা গেছে গরুর হাটে।শত বছরের ঐতিহ্যবাহী মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার টেকেরহাট বন্দরের গরুর হাটে গিয়ে দেখা গেছে সামান্য কয়েকজন ব্যবসায়ী ও গৃহস্থ অল্প কিছু পশু নিয়ে হাটে এসে ক্রেতার অভাবে গরু বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।আবার কেউ লোকসান দিয়ে গরু বিক্রি করছে।আবার ক্রেতাদের অনেকেই অল্প দামে ভালো গরু কিনতে পেরে খুশি তারা।এদিকে খামারীরা গরু মোটা তাজা করণে ব্যস্ত সময় পার করলেও অন্যান্য বছরের ন্যায় এ বছর ক্রেতা ও ব্যবসায়ীর সন্তোষজনক উপস্থিতি না থাকায় দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছেন তারা।এদিকে বন্যার পানিতে চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের অনেক গ্রাম প্লাবিত হয়ে পড়ায় গরু-ছাগল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন খামারী ও কৃষকরা।গো-খাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস ও বন্যার কারনে মাদারীপুরের কোরবানীর পশুর হাট এখনো জমে উঠেনি।খামারের গরু বিক্রি করতে না পারলে খামারের শ্রমিকদের বেতন পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত রয়েছেন তারা। মাদারীপুর জেলায় এ বছর কোরবানীর জন্য পশুর চাহিদা রয়েছে ৪৮ হাজার ৩৪৫টি গরু ও ১৫ হাজার ২৫৬টি ছাগলের এবং জেলায় কোরবানীর যোগ্য পশু রয়েছে ৫৬ হাজার ২৫৬টি গরু,ছাগল ১৬হাজার ২৫৯টি এবং আড়াইশ ভেড়া।

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার বদরপাশা আদর্শ পশু পালন কেন্দ্রের ম্যানেজার মোঃ মহিউদ্দিন জানান,তার খামারে ৭৯টি গরু রয়েছে।কোরবানির আছে আর মাত্র কয়েকদিন।এখনও কোন ক্রেতা আসছেনা।খামারে অনেক টাকা খরচ হচ্ছে। করোনার কারনে ক্রেতা ও ব্যবসায়ী না আসায় চিন্তার মধ্যে আছি।

রাজৈর উপজেলার বাজিতপুর ইউনিয়নের গঙ্গাবর্দী গ্রামের খামারী মোঃ মোশাররফ আকন জানান,করোনার কারনে গরু নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি।অন্যান্য বছর কোরবানীর দুই সপ্তাহ আগ খামারে ক্রেতাদেও উপস্থিতি ঘটে।এবছর ক্রেতাদের উপস্থিতি না বললেই চলে।

টেকেরহাট পশু হাটের ইজারাদার আব্দুল মান্নান হাওলাদার জানান,ঐতিহ্যবাহী টেকেরহাট গরুর হাট এখনো মিলেনি।করোনা ও বন্যার কারনে হাটে ক্রেতা বিক্রেতার উপস্থিতি খুবই কম।অন্যান্য বছর কোরবানীর ২ সপ্তাহ আগ থেকে হাট মেলা শুরু করে। এবছর এখনও হাটে তেমন কোন গরু ছাগল উঠছে না। এই পরিস্থিতি বিরাজ করলে চরম লোকসানের মধ্যে পড়তে হবে।

মাদারীপুর প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা একেএম আনোয়ারুল হক জানান,মাদারীপুর জেলায় এখন পর্যন্ত পশুর হাট জমজমাট হয়নি।কারন এটা রেডজোন এলাকা।যার জন্য খামারীরা ঈদের আগের সপ্তাহে কোরবানীর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গরু বিক্রি করতে পারবে। প্রতিটি ইউনিয়নে এশটি করে পশুর হাট বসবে।অসুস্থ গরু ও ছাগল যাতে হাটে বিক্রি করতে না পারে এজন্য ভেটেরেনারী ৩২টি মেডিকেল টিম কাজ করবে।

করোনা ভাইরাসে সংক্রমন রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে গরুর হাটগুলোতে প্রশাসন কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করবেন এমনটাই প্রত্যাশা মাদারীপুরবাসীর।

Comments

comments

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

add 720x200

Leave a Reply




add 300x600

উন্নয়ন সহযোগীতায়ঃ- সেভেন ইনফো টেক